www.agribarta.com:: কৃষকের চোখে বাংলাদেশ
শিরোনাম:

শেকৃবি রেজিষ্ট্রারকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব

বাকৃবি শিক্ষক সমিতি নিন্দা ও প্রতিবাদ


 বাকৃবি প্রতিনিধিঃ    ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ১১:২৫   ক্যাম্পাস বিভাগ


শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) উপাচার্যের (ভিসি) পদ শূন্য থাকায় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে (রেজিস্ট্রার) ভিসির রুটিন কার্যক্রম চালানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে এতে নিন্দার ঝড় উঠেছে বিভিন্ন মহলে। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) উপাচার্যের শূন্য পদে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রারকে নিযুক্ত করায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) শিক্ষক সমিতি। সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে বাকৃবির শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. ফরিদা ইয়াসমীন বারি ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. এনামুল হক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, গত রবিবার (২০ সেপ্টেম্বর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের এক স্মারকলিপিতে শেকৃবির উপাচার্যের মেয়াদপূর্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য রুটিন দায়িত্ব প্রদান শিরোনামে একটি আদেশ জারি করা হয়। এতে শেকৃবির উপাচার্য পদ শূন্য থাকায় রেজিষ্ট্রার শেখ রেজাউল করিমকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব পালনের আদেশ প্রদান করা হয়। শেখ রেজাউল করিম বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা। একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে একজন উপাচার্যের মত মর্যাদাসীন পদে বসানো বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন ও স্বায়ত্তশাসনের পরিপন্থী।

এছাড়াও বিজ্ঞপ্তিতে একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব প্রদানে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অবিলম্বে এই আদেশনামা প্রত্যাহার করে একজন স্বনামধন্য অধ্যাপককে শেকৃবির উপাচার্য পদে নিয়োগ দেয়ার জোর দাবি জানানো হয়।

এ বিষয়ে শেকৃবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, উপাচার্যের মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পর রেজিস্ট্রারকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব পালন করতে দেয়াটা মোটেই শোভনীয় নয়। এই বিষয়ে আমাদের শিক্ষক সমিতির একটি মিটিং হবে এবং মিটিং এর সিদ্ধান্ত সচিব বরাবর জানানো হবে। যাতে এধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে।

শেকৃবির রেজিস্ট্রার ও বর্তমানে অন্তর্বর্তীকালীন উপাচার্যের দায়িত্বপ্রাপ্ত শেখ রেজাউল করিম বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে আমাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।আমাকে কেনো দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেটা মন্ত্রণালয়ই ভালো জানে। আমাকে যতদিন দায়িত্ব রাখা হবে আমি ততদিন আমার দায়িত্ব পালন করে যাবো।




  এ বিভাগের অন্যান্য