www.agribarta.com:: কৃষকের চোখে বাংলাদেশ

বাঙ্গির পচন রোগ শনাক্তকারী প্রযুক্তি উদ্ভাবন


 শেকৃবি প্রতিনিধিঃ    ১০ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ১১:০৭   কৃষি গবেষণা বিভাগ


বাঙ্গি বাংলাদেশের একটি অতি পরিচিত ফল। এই ফলটি সাধারণত গ্রীষ্মকালে বেশী পাওয়া যায়। দেশের সর্বত্রই কমবেশি বাঙ্গির চাষাবাদ হয়ে থাকে। দেশে এর ব্যাপক চাহিদা ও দাম থাকায় এর চাষাবাদ বেশ লাভজনক। তবে এর চাষে মূল সমস্যা হল ফল পচনকারী রোগ। এই রোগের কারণে বাঙ্গির কাঙ্ক্ষিত উৎপাদন ব্যহত হয়। আশার কথা এই যে এখন আর এই রোগের কারণে বাঙ্গি চাষে চাষিদের আর চিন্তা করতে হবেনা।

শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম উদ্ভাবন করলেন বাঙ্গির পচন রোগ নির্ণয় করার একটি অত্যাধুনিক প্রযুক্তি। যে প্রযুক্তির সাহায্যে স্বল্প সময়ে বাঙ্গির রোগ সনাক্ত করা সম্ভব।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে উদ্ভাবক ড. রফিকুল ইসলাম এ তথ্য জানান। তিনি দক্ষিণ কোরিয়ার সুনচন ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে তার পিএইচডি’র বিষয়বস্তু হিসেবে ২০১৭ সাল থেকে গবেষণা করেন যা ৩ টি আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এবং আরও ১ টিতে সাবমিট করা হয়েছে।তার গবেষণার বিষয় ছিল ‘ইনহেরিটেন্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অব মলিকিউলার মারকারস লিঙ্কড টু ব্যাকটেরিয়াল ফ্রুট ব্লচ রেজিস্ট্যান্স ইন মেলন’।

তিনি জানান, এসিডোভোরাক্স সাইট্রুলি (Acidovorax citrulli) ব্যাকটেরিয়ার মাধ্যমে বাঙ্গি ফল পচনকারী রোগ হয়। এই ব্যাকটেরিয়াকে শনাক্তকরণের জন্য গবেষণা করে ৩ সেট মলিকিউলার মারকার ডেভেলপ করা হয়েছে যার মাধ্যমে আক্রান্ত ফসলের ক্ষতি থেকে আগাম রক্ষা পাওয়া যাবে। ইতোমধ্যে এই ব্যাকটেরিয়ার দুইটি স্ট্রেইনকে ক্লোনিং এবং সিকুয়েন্সিংয়ের মাধ্যমে ‘ইউনিভার্সাল ডাটাবেস এনসিবিআই’ এ সাবমিট করা হয়েছে। বাঙ্গির ৩৫ টি এবং তরমুজের ৭৭ টি ইনব্রিড লাইন এই ব্যাকটেরিয়ার মাধ্যমে কৃত্রিম উপায়ে ইনুকিউলেশন করে ফল পচনকারী রোগ সহনশীল বাংঙ্গীর ৬ টি এবং তরমুজের ৪ টি ইনব্রিড লাইন শনাক্ত করা হয়েছে।




  এ বিভাগের অন্যান্য