ভারত থেকে ১৪০ মহিষ আমদানি

ডেইরি/
বণিক বার্তা

(২ মাস আগে) ৩০ নভেম্বর ২০২৩, বৃহস্পতিবার, ৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

agribarta

দেশে দুধের চাহিদা মেটাতে ভারত থেকে ১৪০টি মহিষ আমদানি করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬৯টি গাভী, বাছুর ৬৯ ও ষাঁড় দুটি। গতকাল সন্ধ্যা ৬টায় ভারতের পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে নয়টি ট্রাকে এসব মহিষ আসে যশোরের বেনাপোল স্থলবন্দরে। আমদানিকারক ঢাকার জেনটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড মহিষগুলো ভারত থেকে আমদানি করে। রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান ভারতের নোরায়াল ডেইরি ফার্ম।

বন্দরের তথ্যমতে, ২০২৩ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি ভারত থেকে ৬৪টি মহিষ আমদানি করা হয়েছিল। এছাড়া ২০১৮ সালের ২০ জুলাই ১০০টি, ১৪ আগস্ট ৭০টি, ৯ মে ১০০টি ও ১৪ অক্টোবর ১০৪টি মহিষ আমদানি করা হয়।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, মহিষের আমদানি মূল্য ১ লাখ ৩০ হাজার ৯৩৭ মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশী মুদ্রায় ১ কোটি ৫৭ লাখ ১২ হাজার ৪৪০ টাকা। শুল্কমুক্ত সুবিধায় এসব মহিষ বন্দর থেকে ছাড়পত্র দেয়া হবে। মহিষগুলো বাগেরহাটের ফকিরহাটে মহিষ উন্নয়ন প্রকল্প খামারে নেয়া হবে।

বেনাপোল বন্দরের পরিচালক রেজাউল করিম জানান, মহিষগুলো বেনাপোল কাস্টম হাউজ থেকে খালাস নিতে মুক্তি এন্টারপ্রাইজ নামে একটি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল করেছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও শুল্কায়ন শেষে বন্দর থেকে পরবর্তী সময়ে খালাস হবে। দ্রুত যাতে মহিষ গন্তব্যে পৌঁছতে পারে সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ২০২১-২২ অর্থবছরে দেশে দুধের উৎপাদন ছিল ১ কোটি ৩০ লাখ ৭৪ হাজার টন। এতে দেশে দুধের চাহিদা পূরণ হচ্ছে না। কারণ, দেশে বছরে চাহিদা ১ কোটি ৫৬ লাখ ৬৮ হাজার টন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মানদণ্ড অনুযায়ী, একজন মানুষের দৈনিক ২৫০ মিলি লিটার দুধ পান দরকার।

শার্শা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা বিনয় কৃষ্ণ মণ্ডল বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে মহিষগুলো ভালো পাওয়া গেছে। আমদানীকৃত মহিষ দেশে দুধের চাহিদা ও মহিষের বিস্তার বাড়াতে বড় ভূমিকাও রাখবে।’