ঢাকা, ১৭ জুন ২০২৪, সোমবার

দুইশো কিলোমিটারের মধ্যে রেমাল, রাজধানীতে রাতেই বৃষ্টি



জাতীয়

এগ্রিবার্তা ডেস্ক:

(৩ সপ্তাহ আগে) ২৬ মে ২০২৪, রবিবার, ৫:১৩ অপরাহ্ন

agribarta

বাংলাদেশের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল। ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার বাতাসের শক্তি নিয়ে উপকূলের কাছাকাছি ২০০ কিলোমিটারের মধ্যেই অবস্থান করছে। ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে রাত থেকেই রাজধানী ঢাকায় শুরু হবে বৃষ্টিপাত। রবিবার আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে এসব তথ্য।

ঘূর্ণিঝড় রেমালের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে দেশের পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে ৯ নম্বর মহাপবিদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়ার বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, প্রবল ঘূর্ণিঝড় রেমাল রোববার বেলা ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৩৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৩১৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ২২০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের সর্বোচ্চ একটানা গতিবেগ ছিল ৯০ কিলোমিটার; যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছিল।
আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে দেশের উপকূলীয় এলাকায় ইতোমধ্যে ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি শুরু হয়েছে।

বর্তমান উত্তরমুখী গতিপথ অব্যাহত থাকলে প্রবাল ঘূর্ণিঝড় রেমাল রোববার সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতের মধ্যে বাংলাদেশের খেপুপাড়া ও ভারতের সাগর দ্বীপের মাঝামাঝি এলাকা দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

ভারতের আবহাওয়া অফিসের বুলেটিনে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার সময় বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটার থাকতে পারে, যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৩৫ কিলেমিটার পর্যন্ত উঠতে পারে।

সর্বশেষ ২০২৩ সালের ৩ ডিসেম্বরে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হয়েছিল ঘূর্ণিঝড় মিগযাউম, যা পরে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ দিয়ে উপকূল অতিক্রম করে। সে ঝড়ের তেমন কোনো প্রভাব বাংলাদেশে পড়েনি।