www.agribarta.com:: কৃষকের চোখে বাংলাদেশ

বিশ্ব ভেটেরিনারি দিবস: প্রত্যাশা ও সম্ভাবনা


 মোঃ আনসারুজ্জামান সিয়াম    ২৫ এপ্রিল ২০২২, সোমবার, ৪:৫৯   সম্পাদকীয় বিভাগ


প্রাণী চিকিৎসকরা হচ্ছেন পশু স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত একটি বিশেষ প্রতিনিধি দল যারা সবসময় সকল পশুর চিকিৎসা করে রোগ নিরাময় করে থাকেন। তাঁদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার কারণে আমরা নিরাপদ আমিষ পেয়ে থাকি । ভেটেরিনারিয়ানদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে পশু স্বাস্থ্য শাখায় এসেছে এক অভূতপূর্ব সাফল্য।

প্রাণী থেকে শতকরা ৭০ ভাগ এর বেশি রোগ ছড়ায় যা মানুষকে আক্রান্ত করে ফেলে। প্রাণী দেহের বিভিন্ন জীবাণুর সংস্পর্শে এসে মানুষ রোগাক্রান্ত হয়ে যায়।বর্তমানে ভেটেরিনারিয়নরা শুধু চিকিৎসা দিয়ে ক্ষান্ত হননি। তাঁরা আজ বিভিন্ন ধরনের টিকা আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে। Salmonella, Sp.Brucella, Sp. Oncoviruses, Botulism সহ নানাবিধ রোগের জীবাণু প্রথম সনাক্ত করেছিল ভেটেরিনারিয়ানরা । বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, প্রতি বছর ১ বিলিয়নের ও অধিক লোক বাহক বাহিত রোগে আক্রান্ত হয়, যার মাঝে প্রায়ই ১ মিলিয়ন লোক মারা যায়। সাধারণত বাহক শতকরা ৭০ ভাগেরও বেশি সংক্রামক রোগের জন্য দায়ী। বাহক এর জীবনচক্র জানা থাকলে রোগ সনাক্ত করা খুব দ্রুত সম্ভব হয়।

সম্ভাবনাময় এই পশু খাতকে এগিয়ে নিতে যেমন প্রয়োজন একজন দক্ষ ভেটেরিনারিয়ান ঠিক তেমনিভাবে প্রয়োজন একজন দক্ষ খামারি। কিন্তু কিছু সীমাবদ্ধতার অন্তর্জালে পিছিয়ে রয়েছে এই বিভাগটি। বর্তমানে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে পশু হাসপাতাল থাকলেও নেই কোন পরীক্ষাগার এবং পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতি সরবরাহ এর ব্যবস্থা। মানুষের সেবায় নিয়োজিত প্রতিটি হাসপাতালের মতো যদি পশু হাসপাতালেও অত্যাধিক যন্ত্রপাতি ও পরীক্ষাগার থাকতো তাহলে এভাবে বিনা পরীক্ষায় প্রতি বছর অসংখ্য পশু মারা যেত না। পশু হাসপাতাল গুলোতে সরবরাহ করা হয় বিভিন্ন ধরনের ভ্যাকসিন যার প্রথম শর্ত হলো ফ্রিজিং ব্যবস্থা। কিন্তু অধিকাংশ হাসপাতালে ই নেই ফ্রিজিং ব্যবস্থা। যার ফলে পশু দেহে অনেক টিকা অকার্যকর হয়ে পড়ছে । এইসব অপ্রত্যাশিত সমস্যা দূরীকরণে একজন দক্ষ ভেটেরিনারিয়ান কে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। তাহলে লাভবান হবে একটি পরিবার এবং একটি দেশ।

কয়েক বছরের ব্যবধানে গ্রামগঞ্জে প্রতিটি পরিবারের কাছে সেবা নিয়ে পৌছে যাবে একদল দক্ষ ভেটেরিনারিয়ান। যার ফলে উপকৃত হবে প্রতিটি পরিবার এবং খামারিরা। পৃথিবীর বুকে" দুধে- মাংসে ভরা" অনন্য একটি দেশ হিসেবে বাংলাদেশ পরিচিতি লাভ করবে।তাই এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হওয়া উচিত ,"দুধে- মাংসে গড়বো দেশ, ভবিষ্যতের বাংলাদেশ।"

  • শিক্ষার্থী, ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্স অনুষদ।
  • গণ বিশ্ববিদ্যালয়, সাভার, ঢাকা ।



  এ বিভাগের অন্যান্য