বিভাগ- কৃষি অর্থনীতি

পদ্মা সেতুর ফলে পাটপণ্য রপ্তানিতে নতুন স্বপ্ন কৃষকদের

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২৬ জুন ২০২২, রবিবার, ৯:২৮

ফরিদপুর জেলার ব্র্যান্ডিং স্লোগান ‘সোনালি আঁশে ভরপুর, ভালোবাসি ফরিদপুর’। নয়টি উপজেলা নিয়ে গঠিত ফরিদপুর জেলা সোনালি আঁশ পাটের ...


পাবনায় উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২৬ জুন ২০২২, রবিবার, ৯:২৬

সঠিক মাত্রায় পিএইচ নির্ণয়ের মাধ্যমে ফসল উত্পাদন বৃদ্ধি ও মাটির স্বাস্থ্যরক্ষা সম্পর্কে পাবনায় পাঁচ দিনব্যাপী কৃষি দপ্তরের উপসহকারী ...


নাটোরে চাষ হচ্ছে আরবের খেজুর

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২৬ জুন ২০২২, রবিবার, ৯:২৪

আরবের খেজুর চাষ হচ্ছে নাটোরে। গাছ রোপণের চার বছরের মাথায় এবারই প্রথম থোকায় থোকায় ধরেছে খেজুর। মরুভূমির এ ...


কফি সংগ্রহে চ্যালেঞ্জের মুখে ব্রাজিলের কৃষক

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২৬ জুন ২০২২, রবিবার, ৯:২১

চলতি মৌসুমের ২১ জুন পর্যন্ত ব্রাজিলের কৃষকরা প্রায় ৩৫ শতাংশ কফি সংগ্রহ করেছেন। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ...


মিরসরাইয়ে ড্রাগন চাষে ঝুঁকছেন উদ্যোক্তারা

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২২ জুন ২০২২, বুধবার, ৯:১৪

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ড্রাগন চাষে ঝুঁকছেন উদ্যোক্তারা। অনেকে শুরুতে শখের বশে এ ফলের চাষ শুরু করলেও এখন বাণিজ্যিকভাবে আবাদ ...


আপেল বাগান বড় করার স্বপ্ন দেখছেন প্রণব

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২২ জুন ২০২২, বুধবার, ৮:৫৫

পড়াশোনা শেষ করে প্রণব হালদার বাড়িতে আপেলের বাগান করেন। দুই বছর আগে লাগানো এসব গাছে ফুল এসেছে। ফলও ধরেছে অনেক ...


কৃষি কাজ করতে সরকারি কর্মকর্তাদের বাড়তি ছুটি

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২২ জুন ২০২২, বুধবার, ৮:৫২

ঋণসংকটে জর্জরিত শ্রীলঙ্কা এখন খাদ্য ঘাটতির শঙ্কায় আছে। পরিস্থিতি এতটা গুরুতর পর্যায়ে চলে গেছে যে দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের ...


ভারতের পাম অয়েল আমদানি ৩৩.২০% কমেছে

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২২ জুন ২০২২, বুধবার, ৮:৪৭

গত মাসে ভারতের পাম অয়েল আমদানি ৩৩ দশমিক ২০ শতাংশ কমেছে। মূলত মে মাসে তিন সপ্তাহ ইন্দোনেশিয়া পণ্যটির ...


খরার প্রভাবে আর্জেন্টিনায় গম আবাদ কমার আশঙ্কা

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ২০ জুন ২০২২, সোমবার, ৯:০৬

গত বছর থেকেই ভয়াবহ খরায় বিপর্যস্ত আর্জেন্টিনার কৃষি খাত। প্রধান প্রধান উৎপাদন অঞ্চলে পরিস্থিতির উন্নতি না হলে ২০২২-২৩ ...


চালের বৈশ্বিক সরবরাহ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে থাইল্যান্ড

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ১৩ জুন ২০২২, সোমবার, ২:১৭

লা নিনা আবহাওয়া পরিস্থিতির প্রভাবে থাইল্যান্ডে পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া সেচের জন্য পানি সরবরাহের সংকটও নেই। ফলে ২০২২-২৩ মৌসুমে দেশটিতে চাল উৎপাদন বাড়বে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। দেশটিতে উৎপাদন বৃদ্ধিকে আশীর্বাদ হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। এ বছর বৈশ্বিক সরবরাহ বৃদ্ধিতে দেশটি বড় ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন তারা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলতি বছর ভারতেও চালের উৎপাদন ভালো। দামও তুলনামূলক কম। কিন্তু গম রফতানি বন্ধ ঘোষণার পর দেশটি চাল রফতানিতেও নিষেধাজ্ঞা দিতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ ফের দাবদাহ দেখা দিলে কিংবা বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে গেলে উৎপাদন ঘাটতি তৈরি হতে পারে। ফলে স্থানীয় বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ ধরে রাখতে চাল রফতানিও বন্ধ করতে পারে দেশটি। এ পরিস্থিতিতে থাইল্যান্ডের ঊর্ধ্বমুখী উৎপাদন ও রফতানি বাজারে ভারসাম্য আনবে।

সম্প্রতি মার্কিন কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) ফরেন এগ্রিকালচার সার্ভিস কর্তৃক প্রকাশিত গ্লোবাল এগ্রিকালচারাল ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক শীর্ষক এক প্রতিবেদনে দেখা গিয়েছে, ২০২২-২৩ বিপণন মৌসুমে দেশটিতে দুই কোটি টন চাল উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, ২০২১-২২ মৌসুমের তুলনায় উৎপাদন বাড়বে ২ শতাংশ।

ইউএসডিএর পূর্বাভাস বলছে, চলতি বছর থাইল্যান্ড ৮০ লাখ টন চাল রফতানি করতে সক্ষম হবে। গত বছর রফতানির পরিমাণ ছিল ৬১ লাখ টন। সে হিসেবে রফতানি ৩১ শতাংশ বাড়বে। মূলত কৃষকরা রফতানিকারকদের কাছে সরবরাহ বাড়ানোয় রফতানিতে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা দিয়েছে।

ফরেন এগ্রিকালচারাল সার্ভিস বলছে, থাই বাথের দাম কমে যাওয়ায় আন্তর্জাতিক বাজারে দেশটির চাল অনেক বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে। প্রতিযোগিতার বাজারে দেশটি ভালো অবস্থানে।

চালের বৈশ্বিক সরবরাহ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে থাইল্যান্ড

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ১৩ জুন ২০২২, সোমবার, ২:১৩

লা নিনা আবহাওয়া পরিস্থিতির প্রভাবে থাইল্যান্ডে পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া সেচের জন্য পানি সরবরাহের সংকটও নেই। ফলে ২০২২-২৩ মৌসুমে দেশটিতে চাল উৎপাদন বাড়বে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। দেশটিতে উৎপাদন বৃদ্ধিকে আশীর্বাদ হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। এ বছর বৈশ্বিক সরবরাহ বৃদ্ধিতে দেশটি বড় ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন তারা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলতি বছর ভারতেও চালের উৎপাদন ভালো। দামও তুলনামূলক কম। কিন্তু গম রফতানি বন্ধ ঘোষণার পর দেশটি চাল রফতানিতেও নিষেধাজ্ঞা দিতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ ফের দাবদাহ দেখা দিলে কিংবা বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে গেলে উৎপাদন ঘাটতি তৈরি হতে পারে। ফলে স্থানীয় বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ ধরে রাখতে চাল রফতানিও বন্ধ করতে পারে দেশটি। এ পরিস্থিতিতে থাইল্যান্ডের ঊর্ধ্বমুখী উৎপাদন ও রফতানি বাজারে ভারসাম্য আনবে।

সম্প্রতি মার্কিন কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) ফরেন এগ্রিকালচার সার্ভিস কর্তৃক প্রকাশিত গ্লোবাল এগ্রিকালচারাল ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক শীর্ষক এক প্রতিবেদনে দেখা গিয়েছে, ২০২২-২৩ বিপণন মৌসুমে দেশটিতে দুই কোটি টন চাল উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, ২০২১-২২ মৌসুমের তুলনায় উৎপাদন বাড়বে ২ শতাংশ।

ইউএসডিএর পূর্বাভাস বলছে, চলতি বছর থাইল্যান্ড ৮০ লাখ টন চাল রফতানি করতে সক্ষম হবে। গত বছর রফতানির পরিমাণ ছিল ৬১ লাখ টন। সে হিসেবে রফতানি ৩১ শতাংশ বাড়বে। মূলত কৃষকরা রফতানিকারকদের কাছে সরবরাহ বাড়ানোয় রফতানিতে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা দিয়েছে।

ফরেন এগ্রিকালচারাল সার্ভিস বলছে, থাই বাথের দাম কমে যাওয়ায় আন্তর্জাতিক বাজারে দেশটির চাল অনেক বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে। প্রতিযোগিতার বাজারে দেশটি ভালো অবস্থানে।

চার বছরে সয়াবিন উৎপাদন ৪০% বাড়াতে চায় চীন

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ১০ জুন ২০২২, শুক্রবার, ৬:৩৬

চীন চার বছরের মধ্যে সয়াবিন উৎপাদন ৪০ শতাংশ বাড়াতে চায়। শস্যটির দেশীয় চাহিদার বড় একটি অংশই আমদানির মাধ্যমে পূরণ করে চীন। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে নানামুখী সংকট ও ঊর্ধ্বমুখী দামের কারণে দেশটি উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। খবর সিটিজিএন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চীনের বাজারে চাল ও গমের সরবরাহ এবং চাহিদা তুলনামূলক স্থিতিশীল ও ভারসাম্যপূর্ণ। কিন্তু সয়াবিনের সরবরাহ ও চাহিদায় বড় ব্যবধান রয়েছে। দেশটি যে পরিমাণ সয়াবিন ব্যবহার করে তার ৮০ শতাংশই আসে আমদানি থেকে।

চীন সরকার ২০১৮ সালে ভুট্টায় ভর্তুকি কমিয়ে সয়াবিনে ভর্তুকি বাড়িয়ে দেয়। কিছু প্রদেশে ভুট্টার প্রতি হেক্টরের তুলনায় সয়াবিনে ৭০০ ডলার বেশি প্রণোদনা দেয়া হতে পারে। তবে কোনো কোনো বিশ্লেষক মনে করছেন, শুধু অর্থ সহায়তা দিয়েই সয়াবিন উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব নয়। কৃষকদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি, যথাযথ প্রশিক্ষণ প্রযুক্তির ব্যবহারসহ ব্যাপক কর্মযজ্ঞ প্রয়োজন।

এদিকে চলতি বছর দেশটির সয়াবিন আমদানিও কমতে পারে। আমদানির পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ৯ কোটি ৮ লাখ টনে, যা আগের প্রাক্কলনের তুলনায় ২ দশমিক ৪ শতাংশ কম। এর আগে ৯ কোটি ৩০ লাখ টন সয়াবিন আমদানির প্রাক্কলন করা হয়েছিল।

অন্যদিকে মে-ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশটির আমদানি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৮ দশমিক ১ শতাংশ কমতে পারে। আমদানির পরিমাণ দাঁড়াবে ৬ কোটি ২৪ লাখ টনে।

চীনের জেনারেল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অব কাস্টমসের তথ্য বলছে, জানুয়ারি-এপ্রিল পর্যন্ত চীন ২ কোটি ৮৩ লাখ ৭০ হাজার টন সয়াবিন আমদানি করেছে। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আমদানি কমেছে ১ শতাংশ।

চীনের ব্যবসায়ীরা জানান, বছরওয়ারি আমদানি চাহিদার পরিমাণ ধরা হয়েছে নয় কোটি টন। আমদানিতে চলমান শ্লথগতি আগামী মাসগুলোয়ও অব্যাহত থাকবে।

...

যুদ্ধ সত্ত্বেও প্রায় ৫ কোটি টন শস্য রফতানি ইউক্রেনের

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ১০ জুন ২০২২, শুক্রবার, ৬:২০

চলতি মাসের প্রথম পাঁচদিনে ১ লাখ ৪৮ হাজার টন খাদ্যশস্য রফতানি করেছে ইউক্রেন। এতে দেশটির চলতি মৌসুমের রফতানি ৪ কোটি ৭২ লাখ টনে উন্নীত হয়েছে। সম্প্রতি ইউক্রেনের কৃষি মন্ত্রণালয় এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

মন্ত্রণালয় বলছে, মোট রফতানীকৃত খাদ্যশস্যের মধ্যে ১ কোটি ৮৫ লাখ ৭৮ হাজার টন গম, ২ কোটি ২৪ লাখ টন ভুট্টা ও ৫৭ লাখ টন যব রফতানি করা হয়েছে। জুনে সবচেয়ে বেশি রফতানি করা হয়েছে ভুট্টা।

তথ্য বলছে, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা চালানোর আগে ইউক্রেন এক মাসেই রফতানি করেছিল ৬০ লাখ টন খাদ্যশস্য। কিন্তু সাম্প্রতিক মাসগুলোয় রফতানির পরিমাণ কমে ১০ লাখ টনে নেমেছে। এ কারণে খাদ্যশস্যের বৈশ্বিক সংকট প্রকট হওয়ার উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

মার্কিন কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) ফরেন এগ্রিকালচারাল সার্ভিসের দেয়া তথ্য বলছে, ২০১৯-২০ মৌসুমে ইউক্রেন ৫ কোটি ৪৯ লাখ টন গম, ভুট্টা ও যব রফতানি করেছিল। কিন্তু ২০২০-২১ মৌসুমে রফতানি কমে ৪ কোটি ৪৯ লাখ টনে নেমে যায়। নিম্নমুখী গম উৎপাদন রফতানি কমে যাওয়ার পেছনে প্রধান ভূমিকা পালন করেছে। জানা গিয়েছে, রাশিয়ার আক্রমণের আগে ইউক্রেন চলতি বছরের জন্য ৬ কোটি ৩৭ লাখ টন খাদ্যশস্য রফতানির প্রাক্কলন করেছিল।

...

কৃষি ও মৎস্য খাতে বরাদ্দ ৮ হাজার ৩৯৭ কোটি টাকা বাড়ছে

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ১০ জুন ২০২২, শুক্রবার, ৬:০৭

প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে কৃষি এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে ২৮ হাজার ২৭ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে এ খাতে বরাদ্দ ছিল ১৯ হাজার ৬৩৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ গত অর্থবছরের চেয়ে ৮ হাজার ৩৯৭ কোটি টাকা বরাদ্দ বেড়েছে। অর্থাৎ গত অর্থবছরের চেয়ে এ খাতে বরাদ্দ বেড়েছে ৪২ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

চলমান বৈশ্বিক কৃষির যন্ত্রাংশ উৎপাদন ও উপকরণে খরচ বেড়েছে। একই সঙ্গে সার উৎপাদন ও আমদানিতে খরচ বেড়ে যাওয়ায় গত অর্থবছরের চেয়ে এ অর্থবছরে শুধু কৃষিতে বরাদ্দ বেড়েছে ৮ হাজার কোটি টাকার বেশি। শুধু কৃষি খাতে আগামী অর্থবছরে ৪৯ দশমিক ৫৭ শতাংশ বরাদ্দ বেড়েছে।

জাতীয় সংসদ বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, কৃষি খাতের প্রধান উপকরণগুলো বিশেষ করে সার, বীজ, কীটনাশক ইত্যাদি এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রধান খাদ্যদ্রব্য আমদানিতে বিদ্যমান শুল্কহার অপরিবর্তিত রাখার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। এছাড়া নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী আমদানিতে প্রযোজ্য শুল্ক-কর স্থিতাবস্থায় রাখারও পরিকল্পনা রয়েছে।

প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণায় নতুন দুটি কৃষি যন্ত্রপাতি আমদানিতে বিদ্যমান এসআরওতে অন্তর্ভুক্ত করে রেয়াতি সুবিধা সম্প্রসারণে প্রস্তাব করা হয়। একই সঙ্গে কৃষি খাদ্য শিল্পে ব্যবহার্য কোল্ড চিলার আমদানিতে কর ৩৭ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়।

মুসলিম বিশ্বের সাথে ধর্মীয় সম্পর্ক উন্নয়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যথেষ্ট আন্তরিক

এগ্রিবার্তা ডেস্ক | ৭ জুন ২০২২, মঙ্গলবার, ৪:১৯

দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম মানবাধিকার সংগঠন সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংগঠনের মহাসচিব মাওলানা মোহাম্মদ আবেদ আলী ও কেন্দ্রীয় ...