ঢাকা, ১৭ জুন ২০২৪, সোমবার

চলমান তাপপ্রবাহের সামাজিক প্রভাব ও করণীয়



পরিবেশ

ড. মতিউর রহমান , গবেষক ও উন্নয়নকর্মী।

(১ মাস আগে) ২৩ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:৩৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১০:১২ পূর্বাহ্ন

agribarta

চলতি বছরের এপ্রিল মাসের মধ্যভাগ থেকেই দেশজুড়ে চলছে তীব্র দাবদাহ। এমন তীব্র দাবদাহে হাঁপিয়ে উঠছে জনজীবন। এই তাপ প্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে এবং আরও বাড়তে পারে বলে সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে যে অতিরিক্ত জলীয় বাষ্প অস্বস্তি আরো বাড়াতে পারে।

সর্বোচ্চ তাপমাত্রা যশোরে ৪২.৬ ডিগ্রি রেকর্ড করা হয়েছে, যা দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলা চুয়াডাঙ্গায় ৪২.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপর তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর অঞ্চলে তাপমাত্রা ৪০ থেকে ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে রয়েছে। এ সময় দিন ও রাতের তাপমাত্রার তেমন কোনো পার্থক্য না থাকায় এ অঞ্চলের জনজীবন খুবই দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে।

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে মাঝারি থেকে তীব্র তাপ প্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এই প্রচণ্ড গরমে শিশু-বৃদ্ধসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। সতর্ক না হলে যে কেউ সাধারণ পানিশূন্যতা, বদহজম থেকে হিটস্ট্রোকে ভুগতে পারে।

বাংলাদেশ এখন নিয়মিত তীব্র তাপ প্রবাহের সম্মুখীন হচ্ছে, যা দেশের সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং পরিবেশগত ক্ষেত্রে বিরূপ প্রভাব ফেলছে। তীব্র গরমের কারণে শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা কঠিন হয়ে পড়ে। এর ফলে ডিহাইড্রেশন, হিট স্ট্রোক, কিডনি বিকলতা, হৃদরোগ, এমনকি মৃত্যুও হতে পারে। তীব্র তাপপ্রবাহে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আরও ৭ দিন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এতে প্রাথমিক, মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং সরকারি-বেসরকারি কলেজ, মাদরাসা, কারিগরি প্রতিষ্ঠান আগামী ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকছে।

শিশু, বৃদ্ধ, গর্ভবতী নারী, এবং দরিদ্র মানুষ তাপপ্রবাহের ঝুঁকিতে বেশি থাকে। তাদের শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা কম হয় এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সহায়তা পেতেও তাদের সমস্যা হয়। তীব্র গরমের কারণে মানুষের মেজাজ খারাপ হতে পারে, বিরক্তি, উদ্বেগ, এবং ঘুমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাপ প্রবাহের সময় হাসপাতালগুলিতে রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পায়, যার ফলে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার উপর চাপ বেড়ে যায়।

তীব্র তাপ প্রবাহের কারণে শ্রমিকদের কর্মক্ষমতা কমে যায়। অনেক প্রতিষ্ঠানে কাজের সময় পরিবর্তন করা হয়, যার ফলে কর্মীদের জীবনে বিঘ্ন ঘটে। এই সময় ফসলের উৎপাদন কমে যায়, যার ফলে কৃষকদের আয় কমে যায় এবং খাদ্য নিরাপত্তায় ঝুঁকি দেখা দেয়। তাছাড়া, নির্মাণ, পরিবহন, এবং পর্যটন শিল্পও তাপ প্রবাহের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

তীব্র তাপ প্রবাহের কারণে শিক্ষার্থীদের মনোযোগ কমে যায় এবং তাদের পড়াশোনার ক্ষতি হয়। তীব্র দাবদাহের সময় অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের ফলাফল খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তীব্র গরমের কারণে অনেক স্কুল বন্ধ রাখা হয়, যার ফলে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়ার ঝুঁকি দেখা দেয়।

তীব্র তাপ প্রবাহের কারণে পানি ও খাদ্যের জন্য প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি পায়, যার ফলে সামাজিক দ্বন্দ্ব দেখা দিতে পারে। তীব্র গরমের সময় অপরাধের হার বৃদ্ধি পায় বলে দেখা গেছে। তীব্র তাপ প্রবাহের কারণে অনেক মানুষ তাদের বাসস্থান ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়, যার ফলে জনগোষ্ঠীর স্থানান্তরের সমস্যা দেখা দেয়।

তীব্র গরমের কারণে মানুষের মনে বিষণ্ণতা ও উদ্বেগের মতো মানসিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। এই কারণে মানুষ ঘরবন্দি হয়ে থাকে, যার ফলে সামাজিক বিচ্ছিন্নতার সমস্যা দেখা দেয়। তীব্র তাপ প্রবাহের কারণে পরিবারে অশান্তি দেখা দিতে পারে।

তীব্র তাপ প্রবাহের কারণে পরিবেশগত ক্ষতি হয়, যার ফলে দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব দেখা দেয়। এটি জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে। তীব্র তাপ প্রবাহ মানুষের মানসিক ও শারীরিক স্বাস্থ্যের উপর স্থায়ী প্রভাব ফেলতে পারে।

বিশেষজ্ঞদের মতামত উল্লেখ করে বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মানবদেহের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা প্রায় ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস আর বাতাসে আর্দ্রতার পরিমাণ ৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে তা মানবদেহের সহনশীলতার সীমার মধ্যে থাকে। কিন্তু বাতাসে তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা এর চেয়ে বেশি হলে মানবদেহ তা সহ্য করতে পারে না। ফলে অস্বস্তি এবং সমস্যা দেখা দেয়। এমনকি তাপমাত্রা ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি হলে হিটস্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে। ফলে তাপ বাড়লে তাপ ব্যবস্থাপনাই হবে মূল কাজ, অর্থাৎ কীভাবে তাপ কমানো যায় তা দেখতে হবে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, তীব্র তাপ প্রবাহে শরীরের পানিশূন্যতা রোধ করতে এ সময় প্রচুর পানি ও পানি জাতীয় খাবার খেতে হবে। পানি, স্যালাইন, ফলের রস এবং পানীয় শরীরে আর্দ্রতা বাড়ায়। ডিহাইড্রেশনের বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেওয়া উচিত বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ পানিশূন্যতার কারণে স্ট্রোক হতে পারে।

পানি ও পানি জাতীয় খাবারের পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণে পানি যুক্ত শাকসবজি ও ফলমূল খেতে হবে। তরমুজ, আনারস, জাম্বুরা, আপেলের মতো ফল শরীরের তাপ কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া প্রচুর শাকসবজি খেলে হজমে সাহায্য করে। এটি শরীরের অস্বস্তি কমায়।

দিনের তাপমাত্রা যখন বেশি থাকে তখন সরাসরি সূর্যালোক বা অতিরিক্ত পরিশ্রম এড়িয়ে চলতে হবে। বাংলাদেশে সাধারণত সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে সূর্যের আলো সবচেয়ে বেশি থাকে। রোদে যেতে চাইলে ছাতা, টুপি, জুতা-স্যান্ডেল ব্যবহার করতে হবে। চোখ রক্ষা করতে সানগ্লাস ব্যবহার করতে হবে। কোথাও যাওয়ার আগে সঙ্গে পানির বোতল নিতে হবে।

তীব্র গরমে ভাজা সুস্বাদু খাবার বা জাঙ্ক ফুড শরীরের তাপমাত্রা বাড়িয়ে দেয়। বার্গার, পটেটো চিপস বা পিজ্জার মতো খাবারে ক্যালোরি, সোডিয়াম এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট বেশি থাকে। ফলে একদিকে যেমন গরম বেশি থাকে, তেমনি বদহজম ও বিরক্তির আশঙ্কা তৈরি হয়। গরমে ভাজা খাবার কম খেতে হবে বা এ ধরনের খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। এছাড়াও, বিশেষজ্ঞরা ক্যাফেইনযুক্ত পানীয় এড়ানোর পরামর্শ দেন।

গরমে হালকা, ঢিলেঢালা ও হালকা রঙের সুতির পোশাক পরার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। এই ধরনের কাপড় দ্রুত তাপ শোষণ করে ফলে কম গরম হয়। ঘর ঠাণ্ডা ও বাতাসযুক্ত রাখার ব্যবস্থা করতে হবে। দিনের বেলায় ঘরে আলো কম থাকলে ঘর ঠান্ডা থাকে। বাড়িতে গাছপালা থাকলে তাপ শোষণ করে। মেঝে পাকা হলে, ঘর বারবার পরিষ্কার করলে ঘর ঠান্ডা থাকবে।

প্রচন্ড গরমে মানুষের শরীর সাধারণত অতিরিক্ত ঘামের কারণে পানিশূন্য হয়ে পড়ে। পানিশূন্যতার কারণে মানুষের শরীর দ্রুত দুর্বল হয়ে পড়ে। এ ছাড়া এ সময় বদহজম ও পেট খারাপ এবং পানিবাহিত রোগ হতে পারে। রোটাভাইরাসসহ বিভিন্ন ভাইরাসের কারণে ডায়রিয়া হতে পারে। মাথা ঘোরা এবং বমি বমি ভাব, কেউ কেউ এমনকি বমিও করতে পারে। এই ধরনের অসুখ সাধারণত একটু সাবধান হলেই এড়ানো যায়। কিন্তু অতিরিক্ত গরমে কারো শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা, দুর্বলতা, মাথা ব্যথা বা মাথা ঘোরা হলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

বাংলাদেশে চলমান তাপপ্রবাহের সামাজিক প্রভাব ব্যাপক ও দীর্ঘমেয়াদী। এই সমস্যা মোকাবিলায় সরকার, বেসরকারি সংস্থা এবং সাধারণ মানুষকে একসাথে কাজ করতে হবে। তাপপ্রবাহের ঝুঁকি কমানোর জন্য সচেতনতা বৃদ্ধি, প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান, এবং পরিবেশ রক্ষার ব্যবস্থা গ্রহণ করা অত্যন্ত জরুরি।

  • লেখক: গবেষক ও উন্নয়নকর্মী।